জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করুন ঘরে বসে ২মিনিটে

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করুন ঘরে বসে ২মিনিটে

যেকোনো দুর্ভাগ্যজনক কারণে আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন হওয়ার দরকার পড়তে পারে।

কোন কারণে জন্ম নিবন্ধন করার সময় যদি ভুল কোন ইনফরমেশন আপনার জন্ম নিবন্ধনের চলে আসে, তাহলে সেটি পরিশুদ্ধ করার মাধ্যমে আপনার পরবর্তী কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

আপনি যদি ভুল ইনফরমেশন দিয়ে পরবর্তী কোন একটি কাজ করেন, তাহলে পরবর্তী সময়ে আপনাকে নানা রকমের ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হবে এবং একইসাথে অনেকগুলো কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার আল্টিমেট গাইড সম্পর্কে। যাতে করে আপনি নিজেই জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

আপনি চাইলে অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসেই আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে কোন রকমের বিভ্রান্তির মধ্যে পড়তে হবে না।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার পূর্বে আপনি কি সংশোধন করতে চান, সেটি আপনাকে নির্বাচন করে নিতে হবে।

বিভিন্ন রকমের সংশোধনের ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকমের পদ্বতি অনুসরণ করতে হয় এবং বিভিন্ন রকমের ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হতে পারে।

একটি উদাহরণ দেয়া যাক, জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আপনার পিতার নাম এবং মাতার নাম সংশোধন করেন, তাহলে একরকম ইনফর্মেশন এর প্রয়োজন হবে।

এবং আপনি যদি আপনার জন্ম তারিখ কিংবা আপনার নিজের নাম সংশোধন করেন, তাহলে ভিন্ন রকম ইনফরমেশন এর প্রয়োজন হবে।

এক্ষেত্রে আপনাকে সর্ব প্রথমে এটি নিশ্চিত হতে হবে যে আপনি কি সংশোধন করতে চান এবং কি সংশোধন করার জন্য কি রকম ইনফরমেশন প্রয়োজন হবে।

এক নজরে জেনে নেয়া যাক ইনফর্মেশন সংশোধন করার ক্ষেত্রে কি কি রকমের ডুকমেন্টস জন্য কি কি রকমের চার্জ এবং ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হতে পারে।

পিতা, মাথার নাম সংশোধন

আপনি যদি পিতা মাতার নাম সংশোধন করতে চান তাহলে আপনাকে আপনার পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন কার্ড কিংবা আপনার পিতা-মাতার যে আইডি কার্ড রয়েছে সেই ইনফরমেশনগুলো সাথে রাখতে হবে।

আপনার পিতা মাতার নাম সংশোধন করার ক্ষেত্রে কিংবা তাদের অন্য যেকোনো রকম ইনফরমেশন সংশোধন করার ক্ষেত্রে তাদের আইডি কার্ড হলেই চলবে।

নিজের এবং অন্যান্য বিষয় পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে

সংশোধন করার ক্ষেত্রে আপনি যদি আপনার নিজের নাম এবং আপনার জন্ম তারিখ ইত্যাদি সংশোধন করতে চান তাহলে আপনাকে বিভিন্ন রকম ইনফরমেশন প্রভাইড করতে হতে পারে।

এক্ষেত্রে আপনার নাম এবং অন্যান্য ইনফরমেশন পরিবর্তন করার জন্য আপনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সর্বশেষ যে সার্টিফিকেট রয়েছে সেই সার্টিফিকেটের অনুলিপি তাদের কাছে প্রেরণ করতে হবে।

যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সার্টিফিকেট কিংবা এই রিলেটেড সনদ তাদের কাছে দিয়ে দিলে তারা সহজেই আপনার নিবন্ধন সংশোধন করে দেয়ার প্রসেস অ্যাক্টিভ রাখবে।

আর দেরি না করে এখুনি জেনে নেয়া যাক জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার সর্বশেষ প্রণালী সম্পর্কে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন চার্জ

একনজরে জেনে নেয়া যাক, চার্জ সম্পর্কে। অর্থাৎ আপনি যদি সংশোধন করেন তাহলে ভিন্ন ভিন্ন বিষয়াদি সংশোধন করার ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন চার্জ সম্পর্কে।

সংশোধনের ধরণ দেশে বিদেশে
তথ্য সংশোধনের জন্য ফি ১০০ টাকা ২ ডলার
জন্ম তারিখ ব্যতীত নাম, পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা ইত্যাদি ও অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য ৫০ টাকা ১ ডলার
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় মূল সনদ বা তথ্য সংশোধনের পর সনদের কপি সরবরাহ বিনা ফিসে বিনা ফিসে
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় সনদের নকল সরবরাহ ৫০ টাকা ১ ডলার

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

আপনি যদি জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিতে চান, তাহলে আপনাকে প্রথমত নিম্নলিখিত লিংকে ভিজিট করতে হবে।

স্টেপঃ১- ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা

সংশোধন করুন

স্টেপঃ২ জন্ম নিবন্ধন ইনফরমেশন দিয়ে সার্চ করা

উপরে উল্লেখিত লিংকে ভিজিট করার পরে এবার আপনাকে আপনার যে জন্ম নিবন্ধন রয়েছে, সেই জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিয়ে অনুসন্ধান নাম ও বাটনের এর উপরে ক্লিক করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করুন ঘরে বসে মাত্র ৬ ধাপের মাধ্যমে

যদি আপনার জন্ম তারিখ এবং আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর সঠিক থেকে থাকে, তাহলে আপনার ওই আইডি কার্ড এর সমস্ত ইনফরমেশন গুলো আপনাকে দেখাবে।

এবার এই আইডি কার্ডের ইনফর্মেশন এর সাথে যদি আপনার ইনফর্মেশন টি মিলে যায়, তাহলে “নির্বাচন করুন” নামের যে বাটন পাবেন, সেই বাটনটির উপরে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করুন ঘরে বসে মাত্র ৬ ধাপের মাধ্যমে

নির্বাচন করুন নামের যে বাটন রয়েছে, সেই বাটন এর উপরে ক্লিক করার পরে তারা আপনাকে নিশ্চিত করার জন্য একটি কনফার্মেশন মডাল পাঠাবে।

কনফার্ম নামক অপশনটি উপরে ক্লিক করুন।

স্টেপঃ ৩ নিবন্ধন কার্যালয়ের ঠিকানা নির্বাচন

কনফার্ম নামের অপশনটির উপরে ক্লিক করার পরে এবার আপনাকে নির্বাচন কার্যালয়ের ঠিকানা যাচাই করে নিতে হবে।

অর্থাৎ আপনার নিবন্ধন সংশোধন করে নেয়ার পরে যে কার্যালয়ের মাধ্যমে আপনি এটি নিজের সংগ্রহে নিয়ে আসবেন, সেটি আপনাকে এখান থেকে নির্বাচন করে নিতে হবে।

এখানে যে অপশন গুলো দেয়া হবে সেই অপশনগুলো যথাযথভাবে ফিলাপ করে নিন।

অর্থাৎ আপনার যে দেশ, জেলা, বিভাগ এবং অন্যান্য ইনফর্মেশন রয়েছে, সেগুলো ফিলাপ করে নেন।

সমস্ত ইনফরমেশন গুলো যথাযথভাবে দিয়ে দেয়ার পরে এবার আপনাকে পরবর্তী নামক বাটনটির উপরে ক্লিক করে নিতে হবে।

স্টেপঃ৪ সংশোধনের আবেদন পূরণ করুন

এবার আপনাকে আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার যে আবেদন রয়েছে, সে আবেদন পূরণ করার একটি গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে চলে আসতে হবে।

আপনি যেহেতু জন্ম নিবন্ধনের তথ্য সংযোজন করতে চান, অর্থাৎ তথ্য সংশোধন করতে চান, সে জন্য আপনাকে অবশ্যই এই পরবর্তী ধাপের নিয়ে “আরো তথ্য সংযোজন করুন” নামের যে অপশন রয়েছে সেই অপশনটি উপরে ক্লিক করতে হবে।

 

স্টেপঃ ৫ – সংশোধনের বিষয় সিলেক্ট করাঃ

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার ক্ষেত্রে আপনি কি সংশোধন করতে চান, সেটি এবার আপনাকে সিলেক্ট করে নিতে হবে।

আপনি যদি সংশোধন করার ক্ষেত্রে আপনার নাম সংশোধন করে নিতে চান, তাহলে এখান থেকে “নাম বাংলায়” এই অপশনটি সিলেক্ট করে নিন।

ইংরেজিতে নামটি সংশোধন করার জন্য আপনাকে পূর্বের ন্যায়, নাম ইংরেজিতে এই অপশনটি সিলেক্ট করে নিতে হবে।

যখনই আপনি আপনার কাঙ্খিত ইনফর্মেশন টি সিলেক্ট করে নেবেন অর্থাৎ আপনি যে ইনফর্মেশন সংশোধন করতে চান, সেটি সিলেক্ট করে নিবেন, তখন আপনাকে অন্য আরেকটি পেইজ এ নিয়ে যাওয়া হবে।

এবার এখানে আপনার যে কাঙ্খিত ইনফরমেশন গুলো রয়েছে, সে ইনফর্মেশন পুনরায় যাচাই করে নিতে হবে এবং এটি সংশোধন করে নিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করুন ঘরে বসে মাত্র ৬ ধাপের মাধ্যমে

সঠিকভাবে সংশোধন করে নেয়ার পরে এবার এই পেজটিকে একটু নিচের দিকে Scroll করতে হবে এবং তারপরে আপনার আরো যে সমস্ত ইনফরমেশন রয়েছে, সে সমস্ত ইনফরমেশন গুলো দিয়ে দিতে হবে।

ইনফো পূরণ করা হয়ে গেলে , এবার আপনাকে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপে চলে যেতে হবে।

স্টেপঃ৬ – আবেদন জমা এবং প্রমাণপত্র আপলোড করা

যখনি ইনফরমেশন গুলো সঠিকভাবে পূরণ করে নিবেন, তখন আপনাকে আপনার ওই ইনফো সংশোধন করার জন্য যে প্রমাণাদি রয়েছে, সেই প্রমাণাদি তাদের কাছে প্রভাইড করতে হবে।

অর্থাৎ আপনার যেকোনো একটি সার্টিফিকেট এখানে দিয়ে দিতে হবে, যেখানে সঠিক ভাবে আপনার ওই ইনফরমেশন দেয়া রয়েছে।

সমস্ত ইনফরমেশন গুলো যদি আপনি আপলোড করতে চান, তাহলে “সংযোজন” নামের যে বাটন রয়েছে, সেই বাটনটি উপরে ক্লিক করে, প্রমাণ গুলো আপলোড করে নিতে হবে।

ইনফরমেশন গুলো যথাযথভাবে দেয়া হয়ে গেলে, একদম সর্বশেষে “সাবমিট” নামের অপশনটি উপরে ক্লিক করে দিতে হবে।

সাবমিট নামক অপশনটির উপরে ক্লিক করার পরে তাদের কাছে আপনার ইনফরমেশন টি সাবমিট হয়ে যাবে।

এবং পরবর্তীতে যদি আপনার এই ইনফর্মেশন গুলো সঠিক থেকে থাকে এবং সমস্ত ইনফরমেশন গুলো যাচাই করা হয়ে থাকে, তাহলে তারা আপনার ইনফর্মেশন টি পরিশুদ্ধ করে দিবে।

আর উপরে উল্লেখিত ৬টি স্টেপ করার মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে নিতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন হতে কতদিন লাগে?

আপনি যদি নিবন্ধন সংশোধন করার আবেদন করে থাকেন, তাহলে এই নিবন্ধন সংশোধন করার জন্য আপনাকে কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে।

অর্থাৎ নিবন্ধন সংশোধন করার ক্ষেত্রে একটি কার্যকরী হতে কয়েক মাস সময় লেগে যেতে পারে।

এক্ষেত্রে যখনই নিবন্ধন সংশোধন হয়ে যাবে, তখন আপনি পুনরায় চেক করার মাধ্যমে এর পরবর্তী সংশোধিত স্ট্যাটাস সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার মাধ্যমে আপনার তথ্যগুলো দেখে নিতে পারেন।

কিভাবে নিবন্ধন যাচাই করবেন, সেই রিলেটেড বিস্তারিত নিচে আলোচনা করা হয়েছে।

Also Read: জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জেনে নিন

উপরে উল্লেখিত লিংক থেকে এই রিলেটেড তথ্যগুলো বিস্তারিত জেনে নিন।

তাহলে আজকে এই পর্যন্ত।

আশা করি, এই রিলেটেড বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পেরেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top